২৫৬১ বুদ্ধাব্দ ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৭ইংরেজী

বৌদ্ধ কৃষ্টি ও সভ্যতা

করল সুমঙ্গল বিহার

চট্রগ্রাম জেলার দক্ষিণাংশে পটিয়া থানায় ১৪ নং ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং ওয়ার্ডে আনুমানিক দু’শত বৎসর পূর্বে প্রখ্যাত হারাধন মহাস্থবির ৬০ শতক ভিটার উপর এ বিহারটি প্রথম প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠালগ্নে বাঁশের বেড়া ও টিনের ছাউনিতে বর্মী শৈল্পিক অনুকরণে অত্যন্ত মনোমুগ্ধকর ও অনুপমভাবে এ বিহারটি প্রতিষ্ঠা করা হয় যা জনগণের মনে বিশেষ প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীকালে ১৯০০ সালে প্রখ্যাত ভিক্ষু প্রজ্ঞালঙ্কার মহাস্থবির এ বিহারটি পুনঃসংস্কার করেন এবং ২ ইঞ্চি থেকে…

ঠেগরপুনী বিহার

এ বিহার দক্ষিণ চট্রগ্রামের পটিয়া থানার ঠেগরপুনী গ্রামে অবস্থিত। এ বিহারটি বুড়া গোঁসাইয়ের মন্দির নামে সমধিক পরিচিত। যতদূর জানা যায়, বিহারটির নির্মাণকাল ১৮৫৫ খ্রিষ্টাব্দ। বর্তমান বিহারটি ৪০ শতক ভিটার উপর, পর পর সারিবদ্ধ তিনটি গম্বুজ নিয়ে গঠিত। মাঝখানের গম্বুজটি সমতল হতে ৫৯ ফুট উঁচু এবং দু পাশ্বের গম্বুজ দুটির উচ্চতা ৪৮ ফুট। মূল মন্দিরের দেওয়াল ৩ ফুট ২ ইঞ্চি পুরু। বিহাটির দক্ষিণ পাশ দিয়ে শ্রীমতি খাল প্রবাহিত। এ বিহারের মূর্তিটির…

মহামুনি বিহার

চট্রগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন পাহাড়তলী ইউনিয়নের, পাহাড়তলী গ্রামের ঠিক মধ্যস্থলে একটি অনুচ্চ টিলার উপর বিহারটি অবস্থিত। এ বিহারটি প্রতিষ্ঠাকাল নিয়ে মতবিরোধ আছে। কারও ধারণা, ১৮১৩ সালে পুণ্যাত্মা ভিক্ষু চাইংসা ঠাকুর স্বগ্রামবাসীর সামগ্রিক সহায়তায় এ বিহারটি প্রতিষ্ঠা করেন। কিন্তু ড. রামচন্দ্র বড়ুয়ার মতে, মহামুনি মূর্তি ও মন্দির ১৮০৫ সালে নির্মাণ করা হয়েছে। তিনি তাঁর গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন ”১২৬৭ মগাব্দের ১০০ বৎসর পূর্বে (১৮০৫ খ্রিঃ) মহামুনি মূর্তি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।” এমতাবস্থায় নিঃসন্দেহে বলা…

ফরাচিন বিহার

চট্রগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন বাগোয়ান ইউনিয়নের বাগোয়ান গ্রামেই এ বিহারটি অবস্থিত। এ বিহারটিও অত্যন্ত প্রাচীন। এখানে কালো পাথরের ভূমিস্পর্শ মূদ্রায় একটি বুদ্ধমূর্তি আছে। বুদ্ধ মূর্তিটির উচ্চতা ১ থেকে ৫ ইঞ্চি। এটা শুধু স্থানীয় নয়, সমগ্র চট্র্রগ্রামবাসী বৌদ্ধদের নিকট এটি ফরাচিন নামে সমধিক প্রসিদ্ধ। ’ফরা’ ব্রহ্মদেশীয় শব্দ, এর অর্থ বুদ্ধ। জনশ্রুতি হতে জানা যায়, মহামুনি মূর্তিও মন্দির প্রতিষ্ঠার পূর্বে এখানে প্রতি চৈত্রসংক্রান্তি দিবসে মেলা বসত। ডা: রামচন্দ্র বড়ুয়া লিখেছেন, অনুমান হয়, ১২৬৭…

আধাঁরমানিক কল্যাণ বিহার

চট্রগ্রাম জেলার রাউজান থানাধীন ১০নং পূর্বগুজরা ইউনিয়নের পূর্ব আধাঁরমানিক গ্রামে এ বিহারটি অবস্থিত। জনশ্রুতি আছে প্রাচীন বাঙ্গালায় প্রাচীনতম বিহারগুলির মধ্যে এ বিহারটি অন্যতম। সমাজের নেত্বস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও প্রবীণ ভিক্ষুসংঘ একবাক্যে স্বীকার  করেন, এ বিহারটি খুবই প্রাচীন। এ ছাড়াও বিহারের প্রাচীরগাত্রে উৎকীর্ণ একটি ফলক হতে জানা যায়, বিহারটি ১৬৯৪ খ্রিষ্টাব্দে প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রাচীন বিহারটি কোন্ অবস্থায়, কত বড় আয়তন নিয়ে বর্ধমান ছিল তা জানা যায় নি। তবে বর্তমান বিহারটি একতলা বিশিষ্ট,…